ওয়ার্ডপ্রেসে ফোনেটিক বাংলায় লেখার সুবিধা যোগ করব কিভাবে

Screen Shot 2014-07-17 at 4.03.12 AM

ওয়ার্ডপ্রেসে ফোনেটিক বাংলায় লেখার সুবিধা যোগ করা এখন খুবই সহজ। এজন্য প্রথমেই নিচের ইউআরএল থেকে bnkb.phonetic.min.js ফাইলটি নামিয়ে আপনার থিমের js ফোল্ডারে রাখুন।

http://scripts.ofhas.in/bangla/bnkb.phonetic.min.js

এবার আপনার থিমের functions.php ফাইলে নিচের কোডটুকু যোগ করে দিন।

ব্যাস, হয়ে গেল ফোনেটিক বাংলায় লেখার সুবিধা। এবার ওয়ার্ডপ্রেস পোস্ট বা পেজের টেক্সট এডিটরে গিয়ে Text মোডে “বাংলা” বাটনের উপরে ক্লিক করলেই সরাসরি ওয়ার্ডপ্রেস এডিটরেই ফোনেটিক বাংলায় লিখতে পারবেন 🙂

আশাকরি পোস্টটি আপনাদের ভালো লেগেছে। তাও মন্তব্যে জানালে খুশি হব অনেক। সবার জন্য শুভকামনা রইলো

কিভাবে ওয়ার্ডপ্রেসে নিজের থিমে রিডাক্স ফ্রেমওয়ার্ক যোগ করব?

Screen Shot 2014-07-16 at 10.14.36 PM
ওয়ার্ডপ্রেসের যতগুলো অ্যাডমিন প্যানেল বা অপশন ফ্রেমওয়ার্ক আছে তাদের মাঝে রিডাক্স অন্যতম। অনেকগুলো চমৎকার ফিচার, প্রচুর ফিল্ডের সমারোহ এবং সহজ ব্যবহারোপযোগিতার কারনে রিডাক্স খুব দ্রুতই ওয়ার্ডপ্রেস থিম ডেভেলপার দের দৃষ্টি আকর্ষন করতে সক্ষম হয়েছে। এছাড়াও রিডাক্সে ডেভেলপাররা ক্রমাগত এটাকে আপডেট করে চলেছেন, যার ফলে আমরা মাঝেমাঝেই পাচ্ছি নিত্য নতুন ফিচার। আজকের এই আর্টিকেলে আমি দেখাবো কিভাবে আমরা আমাদের থিমে এই রিডাক্স ফ্রেমওয়ার্ক দিয়ে তৈরী অপশন প্যানেল যোগ করব

১. এজন্য প্রথমেই https://github.com/ReduxFramework/ReduxFramework/ এখানে ডানদিকের নিচে গিয়ে “Download zip” বাটনে ক্লিক করে রিডাক্স ফ্রেমওয়ার্ক ডাউনলোড করে নিন

২. ডাউনলোড করা জিপ ফাইলটি আনজিপ/এক্সট্রাক্ট করলে redux-framework-master নামে একটা ফোল্ডার পাবেন। সেটা ওপেন করে একমাত্র ReduxCore এবং sample নামের ফোল্ডার দুটো রাখুন, আর class.redux-plugin.php, index.php, license.txt, redux-framework.php নামের ফাইলগুলো রেখে বাকি সবকিছু ডিলেট করে দিন। ডিলেট করার পরে redux-framework-master ফোল্ডার এর কনটেন্ট হবে নিচের মত

Screen Shot 2014-07-16 at 9.47.41 PM

৩. এবার আপনার থিমে libs নামে একটা ডিরেক্টরী তৈরী করে তার ভেতরে এই redux-framework-master ফোল্ডার পেস্ট করে দিন।

৪. এবার আপনার থিমের functions.php ফাইলে নিচের কোড টুকু যোগ করুন

৫. এবার আপনার থিম অ্যাক্টিভেট করে ওয়ার্ডপ্রেস এর অ্যাডমিন প্যানেলে আসলেই বামপাশে দেখবেন “Sample Options” নামে একটা মেনু চলে এসেছে, যা আসলে রিডাক্সের স্যাম্পল ফাইল টির আউটপুট।

Screen Shot 2014-07-16 at 9.58.57 PM

ব্যাস, আমাদের থিমে রিডাক্স ফ্রেমওয়ার্ক যোগ করা শেষ। একদম সহজ, তাই না? এখন আপনি sample-config.php ফাইলটি স্টাডি করে দেখতে পারেন কিভাবে বিভিন্ন ধরনের ফিল্ড যোগ করা হয়েছে। লাইন নম্বর ২৩৯ থেকে এই সেকশন এবং ফিল্ড গুলোর ডেফিনিশন শুরু হয়েছে। এখন একটা বিষয় খুবই জরুরী, আর সেটা হল এই যে আমাদের থিমের ইউজার রা রিডাক্সের সাহায্যে বিভিন্ন ডেটা ইনপুট দিবে – আমরা সেগুলো থিমে ব্যবহার করব কিভাবে। এর জন্য আমাদের দেখতে হবে ১৫৩৫ নম্বর লাইনে (বর্তমান আপডেট অনুযায়ী) এই লাইনটি আছে

এখানে আপনি আপনার পছন্দ মতো ভ্যারিয়েবলের নাম লিখতে পারবেন। যেমন আপনার থিমের নাম যদি হয় FlyHigh তাহলে আপনি লিখতে পারেন

এটা করা হয়ে গেলে আপনার থিমের ফাইলে সবার উপরে এই লাইনটি লিখবেন

এর পর থেকে রিডাক্সের যেকোন ফিল্ডের ডেটা আপনি অ্যাক্সেস করতে পারবেন $flyhigh[‘fieldid’] এইভাবে। ফিল্ডের আইডি কিভাবে লিখতে হয় এটা জানতে হলে আপনি স্যাম্পল কনফিগ ফাইলে অনেক উদাহরণ পাবেন, যেমন ধরুন একটা ফিল্ডের ডেফিনিশন হল

উপরের উদাহরণে ফিল্ডের আইডি হল my_text_field, আর এই ফিল্ডের ভ্যালু পেতে চাইলে আমাদের লিখতে হবে $flyhigh[‘my_text_field’] । আরেকটা জিনিস, সেটা হল যে “Sample Options” নামের মেনুর নাম পরিবর্তন করতে চাইলে নিচের লাইনটি খুঁজে বের করে আপনার পছন্দ মত মেনু নাম দিন

এই স্যাম্পল ফাইলটি আপনার জানার সুবিধার্থে রিডাক্স টিম করে দিয়েছে। এই ফাইলে পরিবর্তন না করে বরং একই ফোল্ডারে দেখবেন barebones-config.php নামে আরেকটা ফাইল রয়েছে, যেটাতে শুধু যেটুকু দরকার সেটুকুই কোড আছে। আপনি সেই ফাইলটি আপনার থিমের কোথাও কপি করে নিয়ে আপনার থিমের জন্য নিজের মত করে অ্যাডমিন প্যানেল বানাতে পারবেন।

আশাকরি আর্টিকেলটি আপনাদের ভালো লেগেছে। তারপরেও মন্তব্যে জানালে খুশি হব 🙂

কুইক টিপস ০১: ওয়ার্ডপ্রেসে ইমেজের ইউআরএল সিডিএনের ইউআরএল দিয়ে রিপ্লেস করা

কোন প্লাগইন ব্যবহার না করেই ওয়ার্ডপ্রেসের পোস্ট এবং পেজের ইমেজের ইউআরএল দিয়ে রিপ্লেস করে দেয়া যায় খুব সহজেই। তবে অবশ্যই আগে থেকে সিডিএন কনফিগার করে রাখা লাগবে Pull From Origin স্টাইলে। এজন্য নিচের ফাংশনটি আপনার functions.php ফাইলে পেস্ট করে দিন।

এই ফাংশনটি আপনার ওয়ার্ডপ্রেসের ইমেজ ইউআরএলের “uploads/” অংশটুকু পর্যন্ত ফাংশনে উল্লেখ করা সিডিএন ইউআরএল দিয়ে রিপ্লেস করে দিবে। এর ফলে আপনার পোস্টের কোন ইমেজের ইউআরএল যদি হয় http://my.wp.blog/wp-content/uploads/2014/05/image.jpg এবং CDN URL  যদি হয় http://my.cdn.url তাহলে পরিবর্তিত ইউআরএল টি হবে http://my.cdn.url/wp-content/uploads/2014/05/image.jpg

আশাকরি টিপসটি অনেকরই কাজে লাগবে 🙂

ওয়ার্ডপ্রেস কনফিগারেশন ফাইলের দশটি টিপস এবং ট্রিকস

ওয়ার্ডপ্রেসের কনফিগারেশন ফাইলে কিছু পরিবর্তনের মাধ্যমে যে কত কিছু করা যায়, অনেকেই সেটা জানেন না। আজকের আর্টিকেলে আমি সেইসব টি্রকস নিয়ে আলোচনা করব। এই আর্টিকেলটি মূলত ইন্টারমিডিয়েট থেকে অ্যাডভান্সড ইউজার দের জন্য – তবে কিছু কিছু সেটিংস যারা নতুন ওয়ার্ডপ্রেস ডেভেলপমেন্ট শুরু করেছেন তাদেরকেও সাহায্য করবে।

টিপ ১: সহজে ওয়ার্ডপ্রেসের রিপোজিটরী থেকে প্লাগইন এবং থিম ইনস্টল করা: নিজের মেশিন সেটা লোকালহোস্ট বা ডেডিকেটেড অথবা ভিপিএস সার্ভার হোক, ওয়ার্ডপ্রেসের অ্যাডমিন প্যানেল থেকে প্লাগইন বা থিম সার্চ করে ইনস্টল করতে গেলেই ওয়ার্ডপ্রেস সার্ভারের এফটিপি ডিটেইলস জানতে চেয়ে একটা স্ক্রিন শো করে। সেখানে এফটিপি ডিটেইলস না দেয়া পর্যন্ত আপনি ইনস্টল করতে পারবেন না। এই বিরক্তিকর স্টেপটি বন্ধ করার জন্য কনফিগারেশন ফাইলে নিচের মত করে একটি ইনস্ট্রাকশন লিখুন

টিপ ২: ডেভেলপমেন্টের সময়ে ভুল হলে বা আমাদের কোড ঠিকমত কাজ না করলে অনেকসময়েই আমাদের জানার দরকার পড়ে সমস্যা টা কি। ওয়ার্ডপ্রেসের নিজস্ব একটি ডিবাগ সিস্টেম রয়েছে যার সাহায্যে আপনি যাবতীয় এরর বা ইনফর্মেশন সম্বন্ধে বিস্তারিত জানতে পারবেন। এটা অন করার জন্য কনফিগারেশ ফাইলে নিচের ইনস্ট্রাকশন দিন। তবে অনুগ্রহ করে প্রোডাকশন সার্ভারে ডিবাগ অফ করে রাখবেন  Continue reading ওয়ার্ডপ্রেস কনফিগারেশন ফাইলের দশটি টিপস এবং ট্রিকস

ওয়ার্ডপ্রেস সিকিউরিটি অ আ ক খ – প্রাথমিক ধারনা

এই আর্টিকেলটি অতিথি লেখক অরিত্রর লেখা। ওর লেখার স্টাইল এবং বিষয়বস্তু আমার পছন্দ হয়েছে।   তাছাড়া এই আর্টিকেলটি ওয়ার্ডপ্রেসের সিকিউরিটির উপরে বেশ কিছু ইন্টারেস্টিং টপিকস নিয়ে আলোচনা করেছে যা আপনাদের ভালো লাগবে বলেই আমার বিশ্বাস। আমি আশা করব অরিত্র পরবর্তীতে আরও কিছু চমৎকার বিষয় নিয়ে হাজির হবে আপনাদের সামনে। পাশাপাশি আমাদের নিয়মিত প্রকাশনা তো রয়েছেই  – হাসিন হায়দার

ওয়ার্ডপ্রেস কি কেন, কিভাবে, এসব নিয়ে আলোচনা চলবে। তবে যখন আপনি দিন রাত পরিশ্রম করে একটা সাইট প্রস্তুত করবেন, এরপর কোন একদিন একজন হ্যাকার এসে সেটার ১২ টা বাজিয়ে দিয়ে যাবে, এরপর আবার আপনি বসে বসে পুনরায় সাইট ঠিক করবেন, এমনটা হলে ব্যাপারটা আসলেই বিরক্তিকর হবে। সাধের সাইট কেউ এসে অকারনে নষ্ট করে গেলে সেটা মেজাজ খারাপ করবে, স্বাভাবিক। এখন নিশ্চয়ই আপনি হ্যাকার চলে গেলে সাইট ঠিক করে ফেলবেন, এই আশায় তো বসে থাকবেন না। জীবনের সব ক্ষেত্রে একটা কথা খাটে, Prevention is Better then Cure. আমরাও এখানে কমবেশি সেই কাজটাই করবো।

কি করতে চাইছি আসলে?

এখানে ওয়ার্ডপ্রেস সিকিউরিটি নিয়ে একদম বেসিক দিক গুলো দেখবো আমরা। পর্যায়ক্রমে আমরা বাকি দিকগুলোর ওপরে আলোকপাত করবো। আপাতত, কিভাবে আপনার কষ্ট কমানো যায়, সেদিকে আমাদের মূল মনোযোগ থাকবে। প্রাথমিক কিছু ব্যাপার আছে, যেখানে আপনি অনেক কম পরিশ্রমে নিজের অনেক কষ্ট কমাতে পারেন। ধাপে ধাপে সমস্যা, কেন সমস্যা এবং সেটার সমাধান নিয়ে আলোচনা করবো আমরা।

যা যা দরকার

  • ঠান্ডা মাথায় পড়তে হবে। 
  • তার চেয়েও বেশী ঠান্ডা মাথায় অ্যাপ্লাই করতে হবে।
  • এবং চাইলে মাথা হালকা গরম করে এক মগ কফি খেতে পারেন এক ফাঁকে।

Continue reading ওয়ার্ডপ্রেস সিকিউরিটি অ আ ক খ – প্রাথমিক ধারনা

সূচীপত্র

১. ওয়ার্ডপ্রেস ডেভেলপমেন্ট শুরু করবেন কিভাবে
২. ওয়ার্ডপ্রেস টার্মিনোলজি
৩. ওয়ার্ডপ্রেস ডেভেলপমেন্ট শুরু করার জন্য প্রয়োজনীয় টুলস এবং সেটআপ
৪. ভার্চুয়াল হোস্টের অ আ ক খ
৫. ইনস্টলিং ওয়ার্ডপ্রেস
৬. ওয়ার্ডপ্রেস সিকিউরিটি অ আ ক খ – প্রাথমিক ধারনা
৭. ওয়ার্ডপ্রেস কনফিগারেশন ফাইলের দশটি টিপস এবং ট্রিকস
৮. কুইক টিপস ০১: ওয়ার্ডপ্রেসে ইমেজের ইউআরএল সিডিএনের ইউআরএল দিয়ে রিপ্লেস করা
৯. কিভাবে ওয়ার্ডপ্রেসে নিজের থিমে রিডাক্স ফ্রেমওয়ার্ক যোগ করব?
১০. ওয়ার্ডপ্রেসে ফোনেটিক বাংলায় লেখার সুবিধা যোগ করব কিভাবে
১১. ওয়ার্ডপ্রেস শর্টকোড ১০১ – পর্ব এক
১২. ওয়ার্ডপ্রেস এডিটরে কাস্টম বাটন যোগ করা
১৩. ব্রাউজারের ক্যাশিং বাড়িয়ে দিয়ে ওয়ার্ডপ্রেস সাইট দ্রুত লোড করুন
১৪. ওয়ার্ডপ্রেস ট্যাক্সনমিতে মেটাবক্স সুবিধা যোগ করা
১৫. ওয়ার্ডপ্রেস লুপে সঠিকভাবে পোস্টের তারিখ দেখানো
১৬. ওয়ার্ডপ্রেস গ্যালারীতে HTML5 মার্কআপ সাপোর্ট
১৭. ওয়ার্ডপ্রেস দ্রুতগতি করণ-১
১৮. কোন প্রকার প্লাগিন ছাড়াই ওয়ার্ডপ্রেস কমেন্ট স্প্যাম থেকে বাঁচার খুবই সহজ উপায়
১৯. ওয়ার্ডপ্রেসের Walker ক্লাসের কাজ ও ধারনা
২০. ওয়ার্ডপ্রেস থিম ডেভেলপমেন্টে লারাভেল টাস্ক টুল এলিক্সিয়ার ( Elixir ) এর ব্যবহার

ওয়ার্ডপ্রেসের কুকবুকে লেখা শুরু করার পর আমি দেখলাম নামে বেনামে অনেকেই এখানে ওখানে কপি পেস্ট করতেছে। প্রথম প্রথম একটু মন খারাপ হলেও পরে ভাবলাম যে আমি আসলে এই লেখা গুলো কেন লিখতেছি? – সবার জন্যই তো। সো কপি পেস্ট হলে আমার কোন সমস্যা নাই, বরং সেটা বেশী মানুষের মাঝেই ছড়িয়ে যাবে যেটা সবার জন্যই ভালো। নাম দিলেই কি, আর না দিলেই কি 🙂

আজ থেকে (এবং পূর্বেকার) ওয়ার্ডপ্রেস কুকবুকের সমস্ত লেখা ক্রিয়েটিভ কমন্স লাইসেন্সের (BY-NC-SA) অধীনে প্রকাশ করা হল।

BY-NC-SA শব্দটির মাঝে বেশ কয়েকটি গূরুত্বপূর্ন টার্ম রয়েছে।

“BY” অর্থ লেখকের ক্রেডিট উল্লেখ করতে হবে
“NC” অর্থ নন কমার্শিয়াল। অর্থাৎ এই লেখা গুলো কোনভাবেই কোন কমার্শিয়াল কাজে ব্যবহার করা যাবে না
“SA” অর্থ এই লেখাটি বা এই লেখার উপরে ভিত্তি করে কোন ডেরিভেটিভ কাজ করলে বা শেয়ার করলে সেটাও অবশ্যই ক্রিয়েটিভ কমন্স BY-NC-SA লাইসেন্সের অধীনেই প্রকাশ করা লাগবে

ক্রিয়েটিভ কমন্স লাইসেন্সের ব্যপারে বিস্তারিত জানতে এখানে ভিজিট করতে পারেন
http://en.wikipedia.org/wiki/Creative_Commons_license

ইনস্টলিং ওয়ার্ডপ্রেস

ওয়ার্ডপ্রেস বিখ্যাত তার ৫ মিনিটের ইনস্টলেশন সিস্টেমের জন্য, তবে সত্যি কথা বলতে ওয়ার্ডপ্রেস ইনস্টল করতে এক মিনিটের বেশি লাগে না। নিজের মেশিন বা ক্লাউড/ভিপিএস/শেয়ার্ড/ডেডিকেটেড সার্ভার ছাড়াও অনেক ফ্রি ওয়ার্ডপ্রেস হোস্টিং সার্ভিস আছে। শুধু একটি ব্লগ চালানোই যদি আপনার টার্গেট হয় তাহলে ওয়ার্ডপ্রেস ডট কম (wordpress.com) ব্যবহার করে দেখতে পারেন, সহজে এবং বিনামূল্যে যদি ওয়ার্ডপ্রেসের ডেভেলপমেন্ট করতে চান তাহলে প্যাগোডাবক্স (pagodabox.com), ফোর্টর‍্য্যাবিট (fortrabbit.com) বা ওপেনশিফট (openshift.com) ব্যবহার করে দেখতে পারেন।

নিজের মেশিনে বা ভিপিএস/ক্লাউড/ডেডিকেটেড সার্ভারে ওয়ার্ডপ্রেস ইনস্টল করার জন্য আগে ঠিকমত অ্যাপাচি, মাইএসকিউএল এবং পিএইচপি কনফিগার করে ফেলুন। এরপর একটি ভার্চুয়াল হোস্ট তৈরী করুন, আমি ধরে নিলাম আপনার ভার্চুয়াল হোস্টের নাম “local.mywp.dev” যা কিনা “/var/www/mywp” ফোল্ডারের সাথে ম্যাপ করা আছে। আপনি আপনার সুবিধামত যেকোন ফোল্ডারে ম্যাপ করে নিতে পারেন ভার্চুয়াল হোস্ট কনফিগারেশনের মাধ্যমে।

স্টেপ ১: http://wordpress.org এখান থেকে ওয়ার্ডপ্রেসের লেটেস্ট ভার্সন নামিয়ে নিন এবং ফাইলটি আনজিপ করুন।

স্টেপ ২: আনজিপ করা ফোল্ডার থেকে সমস্ত ফাইল কপি করুন আপনার ভার্চুয়াল হোস্ট এর ফোল্ডারে  , এই আর্টিকেলে আমি ধরে নিয়েছি ফোল্ডারটি হল /var/www/mywp Continue reading ইনস্টলিং ওয়ার্ডপ্রেস

ভার্চুয়াল হোস্টের অ আ ক খ

আমরা ডেভেলপমেন্টের সময় বেশীর ভাগ সময়েই আমাদের কোড অ্যাপাচির ডকুমেন্ট রুটে (সাধারনত htdocs ডিরেক্টরীতে) রাখি এবং ব্রাউজারে “localhost” লিখে সেটা অ্যাকসেস করি। কিন্তু আজকে আমরা দেখবো কিভাবে আমরা ভার্চুয়াল হোস্ট তৈরী করে আমাদের প্রজেক্টকে যেকোন হোস্ট নাম দিয়ে ব্যবহার করতে পারি।

ভার্চুয়াল হোস্ট তৈরীর আগে আপনার জানা লাগবে যে আপনার অ্যাপাচি কনফিগ ফাইল কোথায় রয়েছে। প্রধান কনফিগ ফাইলটি সাধারনত httpd.conf বা apache2.conf নামে থাকে। অপারেটিং সিস্টেম ভেদে এই ফাইলের লোকেশন এক এক রকম হয়। ডেবিয়ান বা উবুন্তু তে এটা থাকে /etc/apache2/httpd.conf এই লোকেশনে। CentOS এ এই ফাইল থাকে সাধারনত /etc/httpd/conf/httpd.conf এখানে।

আমরা এই আর্টিকেলে সহজে ভার্চুয়াল হোস্ট তৈরীর জন্য সরাসরি httpd.conf ফাইলে এডিট করব, কিন্তু বাস্তব জীবনে বা প্রোডাকশন এনভায়রনমেন্টে আপনি দেখবেন যে আপনার সরাসরি httpd.conf ফাইলে হাত দেয়ার পারমিশন নাও থাকতে পারে, বা থাকলেও সেখানে এডিট না করে আমরা বরং একই ফোল্ডারে “sites-available” এবং “sites-enabled” নামে দুইটি ফোল্ডার থাকে, সেখানে ভার্চুয়াল হোস্টের ডেফিনিশন লেখা হয়। তবে আজকের আর্টিকেলে, আমরা সরাসরি httpd.conf ফাইলেই এডিট করব। Continue reading ভার্চুয়াল হোস্টের অ আ ক খ

ওয়ার্ডপ্রেস ডেভেলপমেন্ট শুরু করার জন্য প্রয়োজনীয় টুলস এবং সেটআপ

ওয়ার্ডপ্রেস পিএইচপি দিয়ে লেখা, তাই যেকোন ধরনের ডেভেলপমেন্টের জন্য আপনার কিছুটা হলেও পিএইচপি জানতেই হবে। তাই বলে আবার যে শুধু পিএইচপি জানলেই হবে তাও কিন্তু না, সাথে আরো কিছু আনুসঙ্গিক টুলস এবং টেকনোলজী সম্পর্কে সম্যক এবং কার্যকরী ধারনা থাকা লাগবে। ওয়ার্ডপ্রেসে ডেটাবেজ হিসেবে মাইসিকুয়েল (বা মাইএসকিউএল, যে যেভাবে উচ্চারণ করেন আর কি) এবং ওয়েবসার্ভার হিসেবে অ্যাপাচি ব্যবহার করে। কিছু থার্ড পার্টি লাইব্রেরী আছে বটে যেগুলোর সাহায্যে ওয়ার্ডপ্রেস কোনরকমে পোস্টগ্রেস বা সিকুয়েল লাইট দিয়েও চালানো যায় কিন্তু সেগুলো অতটা রোবাস্ট না হওয়ায়, সুযোগ সুবিধা সীমিত হওয়ার কারনে এবং সর্বোপরি মাইসিকুয়েল সব ধরনের হোস্টিং এনভায়রনমেন্টে অত্যন্ত সহজলভ্য হওয়ায় সেগুলো তেমন জনপ্রিয় হয়নি। আর ওয়েবসার্ভার হিসেবে যে অ্যাপাচির কথা বলছিলাম, সেখানেও একই রকম ব্যাপার। তবে তারপরেও এনজিনএক্স (nginx) নামে আরেকটি অত্যন্ত জনপ্রিয় এবং লাইটওয়েট ওয়েবসার্ভার আছে যা দিয়েও ওয়ার্ডপ্রেস চালানো যায়। কিন্তু এনজিনএক্সের সাথে ওয়ার্ডপ্রেস সেটআপ করা কিছুটা অ্যাডভান্সড হওয়ায় আমরা এই আর্টিকেলে সেটা নিয়ে আলোচনা করব না, বরং পরবর্তীতে বিশদভাবে এই ব্যাপারে কথা বলা হবে। ওয়ার্ডপ্রেসের ডকুমেন্টেশন বা কোডেক্সেও এই বিষয়ে বিশদ একটি আর্টিকেল রয়েছে।

ওয়েবসার্ভার সংক্রান্ত প্রয়োজনীয় বিষয়সমূহ: ওয়ার্ডপ্রেস অ্যাপাচি ব্যবহার করলেও কাজের সুবিধার্থে আপনার অ্যাপাচির ডিফল্ট কনফিগারেশনে কিছু কিছু মডিউল থাকা বাঞ্ছনীয়। যেমন ভ্যানিটি ইউআরএল বা ফ্রেন্ডলি ইউআরএলের জন্য মড-রিরাইট থাকাটা প্রায় অত্যাবশ্যকীয়। এছাড়া আপনি যদি পরবর্তীতে ডেটাবেজ এবং সিপিইউ এর উপরে লোড কমাতে চান তাহলে ক্যাশিং এনাবল করার জন্য মড-এক্সপায়ারি অথবা মড-হেডারস থাকতে হবে। তবে সেগুলো পরের ব্যাপার। আপাতত মড-রিরাইট থাকাই যথেষ্ট Continue reading ওয়ার্ডপ্রেস ডেভেলপমেন্ট শুরু করার জন্য প্রয়োজনীয় টুলস এবং সেটআপ